ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল সিম্পোসিয়াম অন হসপিটালিটি”র ঊদ্বোধন

বাংলাদেশের কালিনারি আর্টস এবং হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্টকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার লক্ষ্যে ইন্ডাষ্ট্রি-একাডেমিয়া ও সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের অংশগ্রহণে আজ ১০ই সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে দিনব্যাপী “ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল সিম্পোসিয়াম অন হসপিটালিটি” শীর্ষক সিম্পোজিয়ামের উদ্বোধন করা হয়। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ) এবং অক্সফোর্ড কালচারাল কালেক্টিভ এর যৌথ উদ্যোগে ভার্চুয়াল এ সিম্পোজিয়াম আয়োজন করা হয় যেখানে ইউরোপ অষ্ট্রেলিয়া এবং বাংলাদেশের ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ইন্ডাস্ট্রির সাথে যুক্ত অভিজ্ঞ ও দক্ষ রিসোর্স পারসনরা বিভিন্ন সেশনে তাদের উপস্থাপনা অনলাইনের মাধ্যমে তুলে ধরবেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী। শিক্ষা ক্ষেত্রে কালিনারি আর্টস এবং হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্টকে কেন আরও বেশী গুরুত্ব দেওয়া উচিত এবং ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় কিভাবে ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি এডুকেশনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব প্রদান করছে সে বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ড. মোঃ সবুর খান। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এম লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন অক্সফোর্ড কালচারাল কালেক্টিভের চেয়ারম্যান এবং অক্সফোর্ড ব্রæকস্ ইউনিভার্সিটির অক্সফোর্ড স্কুল অব হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্টের প্রাক্তন প্রধান মিঃ ডোনাল্ড ¯েøায়ান, বাংলাদেশ টুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব জাবেদ আহমেদ, ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও কনভেনার মোহাম্মদ নুরুজ্জামান এবং ডিওসিইএইচ এর উপদেষ্ঠা জনাব আজিজ রহমান। অনুষ্ঠানে ড্যাফোডিল অক্সফোর্ড সেন্টার অব এক্সিলেন্স ইন হসপিটালিটি (ডিওসিইএইচ) এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করা হয় যার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে কালিনারি আর্টস এবং হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট এ আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ প্রদান করা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. গওহর রিজভী বলেন, বাংলাদেশের পর্যটন ও হসপিটালিটি স্টেরের উন্নয়নের জন্য এ রকম একটি সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা খুবই দরকার ছিল। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যেমন আন্তর্জাতিক মানের টুরিজম ও হসপিটালিটি শিক্ষায় শিক্ষিত হবে, তেমনি বেকারত্ব দূরীকরনেও ভ’মিকা রাখতে পারবে। এসময় ড. গহর রিজভী ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং অক্সফোর্ডকে ধন্যবাদ জানান এমন একটি সময়োপযোগী উদ্যোগ গ্রহণের জন্য।
ড. গওহর রিজভী ডিশ বাংলাদেশ – ২০২০ সিম্পোজিয়ামের সাফল্য কামনা করে বলেন,এধরনের সিম্পোজিয়ামের ফলে মানুষের মধ্যে টুরজম ও হসপিটালিটি সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি পায়। বাংলাদেশের টুরিজম ও হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট সেক্টরের উন্নয়নের জন্য এ রকম সিম্পোজিয়াম আরো বেশী বেশী হওয়া উচত বলে মন্তব্য করেন ড. গওহর রিজভী বলেন।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ড. মোঃ সবুর খান বলেন, কোভিড-১৯ এর কারনে টুরিজম ও হসপিটালিটি সেক্টওে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। এসব পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়ানোর জন্য অঅমাদেও কোর্স কারিকুলামে পরিবর্তন আনতে হবে। গোটা শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে হবে। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ইতিমধ্যে এমন উদ্যোগ নিয়েছে। ড্যাফোডিল অক্সফোর্ড সেন্টার অব এক্সিলেন্স ইন হসপিটালিটি প্রতিষ্ঠা এবং ডিশ          বা ংলাদেশ -২০২০ সিম্পোজিয়াম আয়োজন সেসব উদ্যোগেরই অংশ। এছাড়া ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক মানে রেস্টুর্টে ও হোটেল আছে বলে জানান তিনি।

ড. মোহাম্মদ সবুর খান আরো বলেন, শিক্ষার্থীদের শুধু পড়ালেই চলবে না , তাদেরকে চাকরির নিশ্চয়তা ও দিতে হবে। শিক্ষার্থীদেরকে দক্ষ ও সময়োপযোগী করে গড়ে তুলতে পারলেই তাদের চাকরি নিশ্চিত হবে। ড্যাফোডিল অক্সফোর্ড সেন্টার অব এক্সিলেন্স ইন হসপিটালিটি শিক্ষার্থীদেরকে দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন

Please Share This Post.