ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির আয়োজনে ‘এইউপিএফ সাব ফোরাম’ অনুষ্ঠিত

ড্যাফেডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির আয়োজনে ‘এশিয়ান ইউনিভার্সিটি প্রেসিডেন্ট ফোরাম’ শীর্ষক অনলাইন সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘ভবিষ্যতের বিশ্ববিদ্যালয়ঃ সুন্দর পৃথিবী’ প্রতিপাদ্য নিয়ে গতকাল সোমবার (৩০ নভেম্বর) জুম প্ল্যাটফর্মে এ ফোরাম অনুষ্ঠিত হয়। অনলাইন এ সেমিনারে বিশ্বের শতাধিক বিশ্ববিদ্যালয় অংশগ্রহণ করে।
ফোরামে সেশন চেয়ার ও কি-নোট স্পিকার হিসেবে ‘টিকে থাকার জন্য অনলাইন শিক্ষা: ড্যাফেডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের পদক্ষেপসমূহ’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খান।
ফোরামে আরও প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চীনের গুয়াংডন ইউনিভার্সি অব ফরেন স্টাডিজের ইউরোপিয়ান ল্যাংগুয়েজ অ্যান্ড কালচার অনুষদের ভাইস ডিন অধ্যাপক মাও ইনহুই, একই বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক আলবার্ট ওলফে, মাইকোলাস রোমেরিস ইউনিভার্সিটি লিথুনিয়ার রেক্টর ড. ইনগা জালেনিনি, এজিএইচ ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি কারাকাউয়ের অধ্যাপক জানুস জিপিৎকো, যুক্তরাজ্যের কনভেনট্রি ইউনিভার্সিটি ফ্রেড পার্কার, একই বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচারার ফ্রেডরিক মারকোউইটজ। সেমিনার সঞ্চালনা করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক তাহসিনা ইয়াসমিন।এছাড়া আরও অংশগ্রহণ করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম লুৎফর রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মদ ইমরান হোসেন প্রমুখ।
প্রবন্ধ উপস্থাপনকালে ড. মো. সবুর খান বলেন, কোডিভ-১৯ মহামারির কারণে সারা পৃথিবীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকেই নিউ নরমাল পদ্ধতির মধ্যে প্রবেশ করতে হয়েছে। আর এই নিউ নরমাল পদ্ধতি হচ্ছে অনলাইন শিক্ষা। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রায় প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই অনলাইন শিক্ষা পরিচালনা করে আসছে। ফলে এই করোনাকালে ড্যাফেডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম কোনোভাবেই ব্যহত হয়নি, বরং অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম আরও বেড়েছে। অনলাইন ক্লাসে প্রথম দিকে শিক্ষার্থীদের একটু অনিহা থাকলেও এখন সবাই অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে। এখন বরং শিক্ষার্থীরা অনলাইন ক্লাসকে উপভোগ করছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
ড. মো. সবুর খান আরও বলেন, আগামীর পৃথিবী তথ্য প্রযুক্তির পৃথিবী। এই পৃথিবীতে টিকে থাকতে হলে প্রযুক্তিকে করায়ত্ব করতেই হবে। সমগ্র শিক্ষা ব্যবস্থাকে প্রযুক্তির সঙ্গে সম্পৃক্ত করা এখন সময়ের দাবি। তিনি জানান, ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় শুরু থেকেই একটি ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে পরিচিতি পেয়ছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় সব ধরনের কাজ ডিজিটাল মাধ্যমে সম্পাদন করা হয়। তিনি বলেন, আমরা একটি ইন্টারন্যাশনাল ওপেন ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করতে চাই। এর মাধ্যমে বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে জ্ঞান বিনিময়, কোর্স বিনিময়, শিক্ষক বিনিময়, গবেষণা ইত্যাদি কাজ করা সম্ভব হবে। এতে সারা পৃথিবীর শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে।
অধ্যাপক মাও ইনহুই বলেন, আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরও আন্তর্জাতিকীকরণ করতে হবে। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা এখনও শিক্ষার্থীবান্ধব নয়। শিক্ষা ব্যবস্থাকে শিক্ষার্থীবান্ধব করার দিকে নজর দিতে হবে। কোভিড-১৯ দেখিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে, শিক্ষাকে অনলাইনের আওতায় আনা ছাড়া উপায় নেই। এজন্য ইন্টারনেটকে আরও সহজলভ্য করতে হবে।

Please Share This Post.