ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলার উদ্বোধন করেন সজীব ওয়াজেদ জয়

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা’র উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানে প্রদান অতিথি প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহ, ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব  নূর-উর-রহমান এবং হুয়াওয়ে টেকনোলজিস বাংলাদেশের সিইও ঝাংজেংজুন।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা বলেন, দেশে এখন তথ্যপ্রযুক্তি রপ্তানি  অফিসিয়ালি হিসেবে এক বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এছাড়া তথ্যপ্রযুক্তি রপ্তানির অনেক কাজ ইন্টারনেট বেইজ, এটা ট্র্যাক করা এখনও ওভাবে সম্ভব হয়নি। সে হিসেবে এটি আনঅফিসিয়ালি আরও এক-দুই বিলিয়ন ডলার হবে।

‘শুধু এগুলো নয় দেশে এখন  মোবাইল ফোন, টেলিভিশন,স্মার্ট ডিভাইস মানে হার্ডওয়্যারের রপ্তানি দ্রুত বাড়ছে। আমরা তথ্যপ্রযুক্তিতে দেশে পোশাক খাতের রপ্তানিকেও ছাড়িয়ে যাবো খুব তাড়াতাড়ি। আর এ সব কিছুর সুফল পাবে বাংলাদেশের জনগণ’ বলছিলেন তিনি।

এই মেলায় ফাইভজি প্রযুক্তি কীভাবে কাজ করে তা সরাসরি দেখা যাচ্ছে। ফাইভজির টাওয়ার, ডিভাইস নেটওয়ার্কিংসহ এই প্রযুক্তি বিস্তারিত তুলে ধরা হচ্ছে। ফাইভজি ছাড়াও মেলায় বিভিন্ন ভবিষ্যত প্রযুক্তি ও ডিজিটাল ডিভাইস উপস্থাপন করা হয়েছে।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত।

এই মেলার আয়োজক ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ। সহযোগিতায় রয়েছে বিটিআরসি, বিটিসিএল, টেলিটক, বিএসসিসিএল, বিসিএসসিএল, ডাক বিভাগ ও ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারদের সংগঠন আইএসপিএবি।

মেলার মূল প্রতিপাদ্য ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার প্রযুক্তির মহাসড়ক’।

মেলায় বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তি ও আইএসপিসহ ৮২টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। প্যারেন্টাল কন্ট্রোল, ট্রিপল প্লে (এক ক্যাবলে ল্যান্ডফোনের লাইন, ইন্টারনেট ও ডিশ সংযোগ), মোবাইল অ্যাপস, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা ও প্রযুক্তি ইত্যাদি প্রদর্শন করা হচ্ছে। ওয়ালটন, স্যামসাং, সিম্ফনির মতো প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের উৎপাদিত পণ্য দেখাবে, দেশী সফটওয়্যার কোম্পানিগুলো তাদের তৈরি সফটওয়্যার ও সেবা উপস্থাপন করছে।

এছাড়া মোবাইল অপারেটরগুলো তাদের ভয়েস, ইন্টারনেট ও মূল্য সংযোজিত সেবা (ভ্যাস) দেখাতে এসেছে। জেডটিই, হুয়াওয়ে, নকিয়া, এরিকসন ফাইভজি ও তার সাথে সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তি প্রদর্শন করছে, তারা লাইভ অনুষ্ঠানসহ এর ব্যবহার উপযোগিতা ‍তুলে ধরছে।

মেলায় শিশুদের প্রোগ্রামিং ও রোবটিক্স শিক্ষা অনুষ্ঠান রয়েছে, টেলিমেডিসিন ও টেলিকম বিভাগের প্রতিষ্ঠানসমূহের সেবা প্রদর্শিত হচ্ছে।

রয়েছে ডিজিটাল উদ্যোক্তা সম্মেলন, রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। মেলায় ১৩টি সেমিনারে সরকারের মন্ত্রী, দেশি ও বিদেশি বিশেষজ্ঞ বক্তারা বর্তমানের প্রযুক্তি ও আগামী দিনে প্রযুক্তির গন্তব্য নিয়ে বলবেন। আলোচনা করবেন  ট্যালেন্ট গ্যাপ, ডিজিটাল অর্থনীতি, ডিজিটাল গ্রোথ, স্মার্ট সিটি, এসডিজির অ্যাচিভমেন্ট ইত্যাদি বিষয়ে।

এবারের মেলায় ২৫টি স্টল, ২৯টি মিনি প্যাভিলিয়ন ও ২৮টি প্যাভিলিয়ন। যেখানে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো তাদের ডিজিটাল অগ্রগতি তুলে ধরছে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রয়েছে পৃথক কর্নার। সেই কর্নারে প্রযুক্তির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জীবনী তুলে ধরা হয়েছে।

মেলায় প্রবেশে  www.digitalbangladeshmela.org.bd ঠিকানায় গিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। মেলার ভেন্যুতেও তাৎক্ষণিক নিবন্ধনের ব্যবস্থা থাকছে।

 

– সিনিউজভয়েস/জিডিটি/জানু.১৬/২০

 

Please Share This Post.