ডিজিটাল প্রশিক্ষণ বাস প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘আইসিটির মাধ্যমে টেকসই নারী উন্নয়নের জন্য ডিজিটাল প্রশিক্ষণ বাস প্রকল্প’ উদ্বোধন করেছেন।

রাজধানীর বসুন্ধরায় ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিতে ১৯ অক্টোবর তিন দিনব্যাপী তথ্যপ্রযুক্তি মেলা ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী এই প্রকল্পটি উদ্বোধন করেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রনালয়ের আইসিটি বিভাগ, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেড এবং শীর্ষস্থানীয় আইসিটি সল্যুশন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড যৌথভাবে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

মাননীয় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, এমপি; ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ এমপি; তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি; এটুআই প্রকল্প পরিচালক কবির বিন আনোয়ার; ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হক; ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন; তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার; বেসিসের প্রেসিডেন্ট মোস্তফা জব্বার; রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ডেপুটি সিইও মাহতাবউদ্দিন আহমেদ এবং হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের সিইও ঝাও হাউফু অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

তিন বছর সময় ধরে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। প্রকল্পভূক্ত ছয়টি বাস আধুনিক আইসিটি প্রশিক্ষণের পরিপূর্ণ সুবিধা ও যন্ত্রপাতি দিয়ে সাজানো হবে। সামাজিক প্রতিবন্ধকতাসহ নানা কারণে যে সকল নারীরা আইসিটি প্রশিক্ষণ নিতে পারে না তাদের এলাকায় এ ডিজিটাল প্রশিক্ষণ বাস যাবে। সেখানে তারা তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারবে।

আইসিটি বিভাগ, রবি আজিয়াটা ও হুয়াওয়ে দুইটি করে বাস সরবরাহ করবে। আইসিটি বিভাগের সহযোগিতায় রবি এবং হুয়াওয়ে বাসগুলোর রক্ষনাবেক্ষন করবে।

তিন বছরব্যাপী প্রকল্পটি চলাকালে ছয়টি বাস দেশের ৬৪ জেলায় যাবে। এগুলোতে ২ লাখ ৪০ হাজার নারী প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রকল্পটি আইসিটি খাতে নারী উদ্যোক্তা তৈরিতে গ্রামীণ জনপদসহ সারাদেশে ব্যাপক উৎসাহ তৈরি করবে বলে আশা করা হচ্ছে।
নারী এবং স্কুল ও কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে আইসিটি শিক্ষাকে জনপ্রিয় করতে গ্রামীণ এলাকায় রোডশো করা হবে।

প্রতিটি বাস শীতাতপনিয়ন্ত্রিত, শব্দপ্রতিরোধক এবং ২৫টি আসনবিশিষ্ট (ওয়ার্কস্টেশন) হবে। প্রতি প্রশিক্ষনার্থীর জন্য একটি ল্যাপটপ থাকবে। প্রশিক্ষণ সুবিধা অবকাঠামোর মধ্যে থাকবে বড় আকারের এলইডি স্ক্রিন, সাউন্ড সিস্টেম, ওয়াইফাই ডাটা সুবিধা, বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ মডিউল, শেখার সফটওয়ার, জেনারেটর।

প্রশিক্ষণ উপকরণগুলো বিনামূল্যে সরবরাহ করা হবে। প্রশিক্ষণ মডিউল এবং প্রশিক্ষকের ব্যবস্থা ও তদারকি করবে আইসিটি বিভাগ।

ভিশন ২০২১ এর সাথে সঙ্গতি রেখে আইসিটির মাধ্যমে নারী ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে দেশে এটিই প্রথম পদক্ষেপ। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যাত্রাপথে তরুণ নারীদেরকে সম্পৃক্ত করতে এই প্রকল্পটি মৌলিক অবদান রাখবে বলে আশা করছেন উদ্যোক্তারা।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.