টেলিযোগাযোগ সেবা সংক্রান্ত বিটিআরসি’র গণশুনানি শুরু

আজ বেলা ১১টায় রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (আইইবি) অডিটরিয়ামে ‘টেলিযোগাযোগ সেবা ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম’ বিষয়ে গণশুনানি শুরু হয়। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিসেস বিভাগের মহাপরিচালক এবিএম হুমায়ুন কবির।

টেলিযোগাযোগ সেবা এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো গণশুনানির আয়োজন করল বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

গণশুনানিতে বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মোবাইল ফোন অপারেটর ও বিভিন্ন টেলিযোগাযোগ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্ত পদস্থ কর্মকর্তা অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেবেন। পরবর্তীতে এসব বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে মতামত দেবেন বলে জানায় বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান ।

বিটিআরসি’র সিনিয়র সহকারী পরিচালক মো. জাকির হোসেন খাঁন  বলেন, জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে ‘টেলিযোগাযোগ সেবা ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম’ শীর্ষক গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

বিটিআরসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মোবাইল অপারেটর ও টেলিযোগাযোগ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্ত পদস্থ কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে নিবন্ধিত অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর এবং কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে মতামত দেবেন বলে জানান জাকির হোসেন।

গণশুনানিতে অংশগ্রহণের জন্য সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত সংস্থা, টেলিযোগাযোগ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান, মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী, ভোক্তা সংঘ, সংশ্লিষ্ট পেশাজীবীসহ আগ্রহীদের মধ্যে প্রায় এক হাজার ৬০০ জন নিবন্ধন করেছেন।

বিটিআরসি জানায়, মোবাইল ফোন অপারেটরদের সেবার মান বিশেষ করে কল ড্রপ, ভয়েস কল ও ইন্টারনেটের বিভিন্ন প্যাকেজ ও মূল্য সম্পর্কে জনগণের সরাসরি মতামত নেওয়া হবে।

এছাড়াও সাইবার অপরাধ, মোবাইল ফোনে হুমকি, ফেসবুক ব্যবহারে নিরাপত্তা, মোবাইল অপারেটরদের কলসেন্টারের মাধ্যমে সেবা সংক্রান্ত অভিযোগ এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য টেলিকম সেবাদানকারীদের প্রদত্ত সেবার বিষয়ে জনসাধারণ অভিযোগ ও এ সম্পর্কিত বিভিন্ন মতামত নেওয়া হবে।

বিটিআরসির সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, মার্চে মোবাইল ফোন গ্রাহক ১৫ কোটি ৯৭ লাখ ৮০ হাজার এবং ইন্টারনেট গ্রাহক নয় কোটি ৩১ লাখ ২ হাজার।

পূর্বে মোবাইল অপারেটরদের সেবার মান নিয়ে সরাসরি ভোক্তা সাধারণের মতামত জানতে প্রথমবারের মতো বিটিআরসি ২০১৬ সালের ২২ নভেম্বর গণশুনানির আয়োজন করেছিল।

-সিনিউজভয়েস/জিডিটি/জুন১২/১৯