জেশ্চার ইন্টারফেস

২০০২ সালের সাই-ফাই মুভি মাইনরিটি রিপোর্ট-এ এমন একটি ভবিষ্যতের চিত্র অঙ্কন করা হয়েছে যেখানে কম্পিউটারের সাথে যোগাযোগের কাজটি মূলত ইশারা ইঙ্গিত বা gesture–এর সাহায্যেই করা হয়। অদ্ভুত রকম দেখতে একজোড়া গ্লাভস পরে ছবির নায়ক টম ক্রুইজকে দেখা যায় কম্পিউটারের পর্দায় ইমেজ, ভিডিও, ডাটাসেটসহ নানা রকমের বস্তুকে নিয়ে কাজ করতে। আজ থেকে এক দশক আগে এ ধরনের একটি ইউজার ইন্টারফেস ব্যবহারের ব্যাপারটিকে একটু কষ্টকল্পিতই মনে হয়েছিল, বিশেষ করে ইশারা ইঙ্গিতের মাধ্যমে এতটা নিখুঁতভাবে কম্পিউটারকে নিয়ন্ত্রণ করার ব্যাপারটি।

কিন্তু আজ এক দশক পেরিয়ে এটিকে আর কষ্টকল্পিত বলার উপায় নেই। পরবর্তীকালে ২০০৬ সালে ডব্লুআইই রিমোট (Wii Remote) এবং ২০১০ সালে কাইনেক্ট (Kinect) ও প্লেস্টেশন মুভ (PlayStation Move )-এর মত মোশন-সেন্সিং ডিভাইসের কল্যাণে ভবিষ্যতের ইউজার ইন্টারফেস যে অনেকটাই ইশারা ইঙ্গিত নির্ভর হবে তার একটি বড় নজির এখনই আমরা পেয়ে যাচ্ছি।

জেশ্চার রিকগনিশনের ক্ষেত্রে ইনপুট আসে হাত বা শরীরের অন্য কোনো অঙ্গ প্রত্যঙ্গের নড়াচড়ার মাধ্যমে কম্পিউটারের নানারকম কাজ করার মাধ্যমে, এখনও যেটি ডিভাইস, টাচ স্ক্রিন বা ভয়েসের মাধ্যমে ইনপুট দেয়ার মাধ্যমেই আমরা করে থাকি। আমাদের বর্তমান দ্বিতীয় মাত্রিক ইউজার ইন্টারফেসের সঙ্গে z অক্ষ (z-axis) এসে যুক্ত হওয়ার ফলে মানুষ এবং কম্পিউটারের মিথস্ক্রিয়া ভবিষ্যতে অবশ্যই অনেক উন্নত হবে। আমাদের শরীরকে ব্যবহার করে আরো কত রকম কম্পিউটার ফাংশন সম্পন্ন করা যাবে একবার ভেবেই দেখুন।

-সিনিউজভয়েস/ডেক্স/৩০জুলাই/১৯

Please Share This Post.