উবার জেনারেশননেক্সট নতুন উদ্যোগে শাহনাজ এর দুই মেয়ে

বাংলাদেশে উবার এর কার্যক্রম চলছে ২ বছরের বেশি সময় ধরে। এই অল্প সময়ে আমরা অনেক ড্রাইভার-পার্টনারদের গল্প জানতে পেরেছি যাদের জীবনে ইতিবাচকভাবে প্রভাব ফেলেছে। এর মাঝেই কখনো কখনো কিছু গল্প আমাদের হৃদয় কে ছুঁয়ে যায়; শাহনাজের গল্প ঠিক তেমনই।

শাহনাজ আক্তার একজন উবারমটো ড্রাইভার যিনি সাম্প্রতিক সময়ে আলোচনায় এসেছেন তার সাহসিকতা ও কাজের প্রতি তার আনুগত্যের কারণে। উবার কে তার আয়ের মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়ে শাহনাজ তার দুই মেয়েসহ তার পরিবারের দেখাশোনা করেন। শাহনাজ স্বপ্ন দেখেন তার দুই মেয়েকে স্বাধীন ও স্বাবলম্বী করে বড় করে তোলার।

উবার সবসময়ই ড্রাইভার-পার্টনারদের আরো উন্নত জীবন দেয়ার জন্য সচেষ্ট। আমাদের লক্ষ, আয়ের পাশাপাশি ড্রাইভার-পার্টনাররা যেন তাদের ও তাদের পরিবারের জন্য আরো নিশ্চিত ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে পারেন। এই লক্ষের প্রতি আরেক ধাপ এগিয়ে যেতেই জেনারেশননেক্সট নামে নতুন এক উদ্যোগ নিয়েছে উবার। এই কার্যক্রমের আওতায় ড্রাইভার-পার্টনারদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা নিয়ে আসার পাশাপাশি নির্বাচিত ড্রাইভার-পার্টনারদের পরিবারের জন্য স্কুলে বৃত্তির ব্যবস্থা করবে উবার। এটি শুরু হতে যাচ্ছে শাহনাজ আক্তারকে দিয়ে, যার দুই মেয়ের জন্য অন্তত এক বছরের বৃত্তির ব্যবস্থা করেছে উবার।

কিছুদিন আগে আমরা শাহনাজ আক্তার ও তার দুই মেয়ে উবার অফিসে এক আড্ডায় অনেক কিছু শেয়ার করেন তার কিছু অংশ এখানে তুলে ধরা হলো আপনাদের জন্য।

নিজের সম্পর্কে আমাদের কিছু বলুন।

ঢাকার এক দরিদ্র পরিবারে আমার জন্ম এবং বড় হওয়া। বিবাহিত হলেও এখন আমি আমার দুই মেয়েকে নিয়ে আলাদা থাকি। মেয়েদের বাবা তাদের কোনো দায়িত্ব বহন করেন না। আমার দুই মেয়ের একজন নবম শ্রেণীতে এবং আরেকজন প্রথম শ্রেণীতে পড়ে। এখন আমার জীবনের একমাত্র লক্ষ্য হলো আমার মেয়েদের শিক্ষিত ও স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলা যেন ভবিষ্যতে তাদের আমার মতো কষ্টের সম্মুখীন হতে না হয়। তাই আমি বাইক কিনে উবারr এ ড্রাইভার হিসেবে রেজিস্টার করি।

উবার এর সাথে আপনার যাত্রা কেমন যাচ্ছে?

উবার আমাকে আমার কাজের সময় নির্ধারণ করার স্বাধীনতা দেয়। আমি প্রতিদিন আমার মেয়েদের স্কুলে দিয়ে, বাসার সব কাজ শেষ করে উবার এ ট্রিপ দিতে বেরিয়ে পড়ি। এর ফলে আমি কাজের পাশাপাশি বাসায় যথেষ্ট সময় দিতে পারছি। এছাড়া উবার থেকে আমার আয় দিয়েই আমি আমার পরিবারের সব খরচ বহন করতে পারছি এবং আমার সব ঋণও পরিশোধ করছি।

রাইড শেয়ারিং এ একজন মহিলা ড্রাইভার হিসেবে আপনাকে কি ধরণের সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়?

আগে অনেক সমস্যা হতো। অনেক সময় রাইডাররা মহিলা ড্রাইভার দেখে ট্রিপ ক্যানসেল করে দিতেন। কিন্তু উবার এ যুক্ত হওয়ার পর থেকে এমন সমস্যা হচ্ছে না। এমনকি উবার এর রাইডাররা খুবই আন্তরিক এবং সকলেই আমাকে এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা দিয়েছেন।

আপনার বাইকটি চুরি হয়ে যাওয়ার ঘটনাটি সম্পর্কে কিছু বলুন।

কিছুদিন আগে আমাকে পার্ট-টাইম কাজের লোভ দেখিয়ে একজন আমার বাইকটি চুরি করে নিয়ে যায়। বাইক চুরির ঘটনার পর অনেকেই আমার দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। আমি তাদের সকলের প্রতি চির কৃতজ্ঞ। কিন্তু আমি কারো কাছ থেকে আর্থিক সাহায্য না নিতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আমি আমার কষ্টে অর্জিত টাকা দিয়ে আমার পরিবারের ভরণপোষণের দায়িত্ব পালন করতে চাই। পুলিশ, সাংবাদিক, উবার কর্তৃপক্ষ এবং ইন্টারনেটে দয়াবান মানুষের সহযোগিতায় আমি সৌভাগ্যক্রমে আমার বাইকটি ফিরত পেয়ে যাই।

উবার এর কোন জিনিসটি আপনার সবচেয়ে বেশি ভালো লাগে?

উবার এ আমি আমার কাজের মূল্য এবং স্বীকৃতি দুইটিই পাই। শুধু আমার রাইডাররাই নয় বরং উবার কর্তৃপক্ষও আমাকে আমার কাজের জন্য সম্মান ও এগিয়ে যাওয়ার উৎসাহ দিয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা হল যে আমার মতো অনুগত ড্রাইভার-পার্টনারদের প্রতি উবার অনেক যত্নশীল। কিছুদিন আগেই আমাকে জানানো হয় যে আমার মেয়েদের আগামী এক বছরের পড়াশোনার দায়ভার নিচ্ছে উবার। এমনকি আমাকে দিয়েই শুরু হচ্ছে জেনারেশননেক্সট প্রোগ্রাম। আমি খুবই অবাক হয়েছি এবং একই সাথে অনেক আনন্দিত এমন একটি পদক্ষেপ নিয়েছে।

আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় উবার এর এই প্রচেষ্ঠা কিভাবে আপনাকে সহায়তা করতে পারবে?

এই উদ্যোগ আমাকে ভীষণভাবে সাহায্য করবে। উবার কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে মিরপুর বাংলা উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং আরবান প্রিপারটরি স্কুল এর সাথে কথা বলে সব ব্যবস্থা করে ফেলেছেন। আমার দুই মেয়ে এই দুই স্কুলে পড়ছে এখন। যেহেতু তাদের স্কুলের দায়ভার উবার নিয়েছে, তাই এই অর্থটুকু আমি আমার মেয়েদের ভবিষ্যতের জন্য  জমাতে পারবো। একই সাথে তাদের পড়াশুনাটাও নির্বিঘ্নে চালিয়ে যেতে পারবো।

আমার বিশ্বাস যে এটা আমার মেয়েদের স্বাধীন ও স্বাবলম্বী হয়ে গড়ে উঠতে সাহায্য করবে এবং এর মাধ্যমে আমি তাদের জন্য একটি উন্নত জীবন নিশ্চিত করতে পারবো।
শাহনাজ আক্তার একজনই আছেন কিন্তু তার মতো অনেকেই আছেন যারা উবারএর উপর নির্ভর করে তাদের স্বপ্ন পূরণের যাত্রা চালিয়ে যাচ্ছেন। শুধু আর্থিক সাহায্যই না বরং তাদের জীবনের অন্যান ক্ষেত্রেও উবার তাদের সাথে থাকবে। আমাদের এই উদ্যোগগুলো আমাদের ড্রাইভার-পার্টনারদের জীবনে কতটুকু ভূমিকা রাখতে পারবে তা প্রোগ্রামের ভিন্নতা ও পরিসরের উপর নির্ভর করবে। কিন্তু আমাদের লক্ষ্য সবসময়ই থাকবে আমাদের ড্রাইভার-পার্টনার ও তাদের পরবর্তী প্রজন্মের জন্য একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করার পথের কাজ করা। কারণ সবে তো শুরু মাত্র!

–সিনিউজভয়েস/

Please Share This Post.