খুলনায় আনুষ্ঠানিকভাবে ৪জি চালু করলো গ্রামীণফোন

গ্রামীণফোন গত ২৫ ফেব্রুয়ারি সেরা সেবার প্রতিশ্রুতি নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে খুলনা শহরের কিছু এলাকায় ৪জি সেবা চালু করেছে। গ্রামীণফোনের চিফ টেকনোলজি অফিসার রাদে কোভাসেভিচ আনুষ্ঠানিকভাবে ৪জি চালু করার ঘোষণা দেন। গ্রামীণফোনের হেড অফ প্রোডাক্ট সৌরভ প্রকাশ এবং খুলনা বিজনেস সার্কেল প্রধান নাফিজ ইমতিয়াজ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বর্তমানে খুলনার শিববাড়ী মোড় এবং সোনাডাঙ্গা এলাকায় ৪জি সেবা চালু হয়েছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে খুলনার আরো
এলাকা ৪জি কাভারেজের আওতায় আসবে। ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা এবং রাজশাহীর কিছু এলাকাতেও ৪জি চালু আছে।
বেশিরভাগ বিভাগীয় শহরে অচিরেই ৪জি চালু হবে। প্রতিষ্ঠানটি ৩জির ক্ষেত্রে যেমন করেছিল এবারো একই রকম দ্রুতগতিতে ৪জি বিস্তার করা হবে। আগামী ছয় মাসের মধ্যেই সব জেলা শহরে ৪জি পৌছে যাবে।

৪জি সেবা চালু করার সময় রাদে কোভাসেভিচ বলেন, গ্রামীণফোন খুলনার গ্রাহকদের জন্য সেরা সেবা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং
৪জির ক্ষেত্রেও এর কোন ব্যাতিক্রম হবে না। খুলনার মানুষ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসাগুলো ৪জি চালু হওয়ায় বিপুলভাবে উপকৃত
হবে।

এর আগে গ্রামীণফোনকে ৪জি পরিচালনার লাইসেন্স দেয়া হয়্ । সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি ১৮০০ ব্যান্ড ৫ মেগাহার্জ বেতার তরঙ্গ
কেনার ফলে ৪জি/এলটিই বিস্তারের জন্য সবচেয়ে কাংক্ষিত ব্যান্ডে সর্বাধিক স্পেকট্রাম হাতে পেয়েছে । এই নতুন স্পেকট্রাম এবং বিদ্যমান স্পেকট্রামে প্রযুক্তি নিরপেক্ষতা গ্রামীণফোনকে সেরা ৪জি সেবা দেয়ার ক্ষেত্রে একটি শক্ত অবস্থানে পৌছে দিয়েছে। প্রযুক্তি নিরপেক্ষতার ফলে গ্রামীণফোন তার ৯০০, ১৮০০ এবং ২১০০ মেগাহার্জ ব্যান্ডের স্পেকট্রামে আরো দক্ষতার সাথে ভয়েস ও ডাটা সেবা দিতে পারবে।

৪জি বিস্তারের সাথে সাথে নেটওয়ার্কের আধুনিকায়নের ফলে গ্রাহকরা এইচডি ভিডিও, লাইভ টিভি স্ট্রিমিং, ঝকঝকে ভিডিও কল
আর দ্রুতগতির ডাউনলোড উপভোগ করতে পারবেন।

গ্রাহকরা *১২১*৩২৩২# ডায়াল করে জানতে পারবেন যে তাদের সিম ৪জি উপযোগী কি না। যদি না হয় তাহলে নিকটস্থ সিম
পরিবর্তন কেন্দ্র বা গ্রামীণফোন সেন্টারে গিয়ে সিম পরিবর্তন করতে অনুরোধ করা যাচ্ছে। এছাড়াও তাদের একটি ৪জি উপযোগী
হ্যান্ডসেটও প্রয়োজন হবে।

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/

Please Share This Post.