কঙ্গো’র টোল ব্যবস্থাপনায় প্রযুক্তি সেবা দিবে বাংলাদেশী ডাটাসফ্ট

দেশের স্বনামধন্য সফ্টওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ডাটাসফ্ট গত ১৮ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গোর পরিবহন ও যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের সাথে একটি ঐতিহাসিক চুক্তিপত্র স্বাক্ষর করে।

প্রথম বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠান হিসেবে ডাটাসফ্ট আফ্রিকার অন্যতম বৃহৎ এই দেশে এধরনের চুক্তিতে আবদ্ধ হলো। কঙ্গোর বিখ্যাত “মাতাদি সেতু” এই ইন্টারনেট অফ থিংকস (আইওটি) ভিত্তিক স্বয়ংক্রিয় টোল ব্যবস্থাপনা প্রযুক্তির আওতাভুক্ত হবে।
ইতপূর্বে গত ১৪ থেকে ২১ জুলাই, ২০১৭ তারিখে গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গোর ঢাকা ও চট্রগ্রামের (প্রস্তাবিত) কনসুল (Consul) নাজির আলম ও জিয়াউদ্দিন আদিল এর নেতৃত্বে কঙ্গোর পরিবহন ও যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর করেন। দলটির নেতৃত্ব দেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের ডিরেক্টর জেনারেল ফ্রান্সিস ডব্লিউ লেনজেনেস, তার সাথে ছিলেন অপারেটিং ডিরেক্টর ফ্রেডরিক কে ভেটুকালা ও টেকনিক্যাল ডিরেক্টর টু ডে প্রমুখ।

সফর কালীন সময়ে ডাটাসফ্ট কঙ্গো প্রতিনিধি দলকে তাদের আইওটি ভিত্তিক টোল ব্যবস্থাপনা মডেলটির প্রোটোটাইপ প্রদর্শন করে। তারা মডেলটি পছন্দ করেন এবং নিজ দেশে এর বাস্তবায়নের আগ্রহ প্রকাশ করে। তারা এই সময়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, এমপি সাথে সৌজন্য স্বাক্ষাত করেন।

মন্ত্রী বলেন “ আমরা আশাকরছি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ও কঙ্গোর মধ্যে তথ্য প্রযুক্তি ও দক্ষতার আদান প্রদানের মাধ্যমে একটি পারস্পারিক সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্ক তৈরী হবে যা দু’দেশের তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে নতুন সম্ভাবনা ও প্রবৃদ্ধির দ্বার উন্মোচন করবে।

এই লক্ষ্যে ডাটাসফ্ট এর ডিরেক্টর ও সিওও মনজুর মাহমুদ ও তার টিম সম্প্রতি কঙ্গো সফর করেন এবং এ চুক্তিপত্র স্বাক্ষর করেন। সফর কালীন সময়ে মনজুর কঙ্গোর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের ভাইস প্রিমিয়ার হোসে মালিকা এবং কঙ্গোর যুক্তরাজ্য ভিত্তিক কনসুল টেনডেলুয়াবার সাথে সাক্ষাত করেন। তারা কঙ্গোতে এই প্রযুক্তির সফল বাস্তবায়নের প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেন। প্রকল্পটির সময় কাল ১৮ মাস যার কাজ ইতিমধ্যেই পুরোদমে শুরু হয়েছে।

সিনিউজভয়েস