ওয়ালটনের ডিজিটাল ক্যাম্পেইন : সারা দেশে উৎসবের আমেজ


দেশজুড়ে চলছে ওয়ালটনের ডিজিটাল ক্যাম্পেইন। দশ হাজার বা তার বেশি টাকার পণ্য কিনে রেজিস্ট্রেশন করলেই মিলছে নিশ্চিত ক্যাশ ভাউচার। এর আওতায় প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পাচ্ছেন ক্রেতারা। এই ডিজিটাল ক্যাম্পেইনকে ঘিরে শোরুমগুলাতে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ। ওয়ালটন প্লাজা ও  পরিবেশক শোরুমগুলো সাজানো হয়েছে ফেস্টুন ও ব্যানার দিয়ে। চলছে বাদ্যি-বাজনা সহযোগে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা। ফলে বিক্রয়কেন্দ্রগুলোতে বাড়ছে ক্রেতাদের ভিড়।

ক্রেতাদের দোরগোঁড়ায় অনলাইনে দ্রুত সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দিতে ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম চালু করে ওয়ালটন। মূলত পণ্য কেনার পর ক্রেতাদের রেজিস্ট্রেশনে উদ্বুদ্ধ করতে প্রতিদিন দেওয়া হচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকার ক্যাশ ভাউচার।

এই ডিজটাল ক্যাম্পেইন উপলক্ষে সারা দেশে চলছে উৎসবের আমেজ। প্রতিটি প্লাজা এবং পরিবেশক শোরুম সেজেছে নতুন সাজে। চলছে মাইকিং। বিভিন্ন স্থানে ঢাক-ঢোল বাজিয়ে ক্রেতা আকর্ষণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আবার লাখ টাকা ক্যাশ ভাউচার বিজয়ীকে নিয়ে চলছে আনন্দ মিছিল, ব্যান্ড পার্টি। ওই ক্যাশ ভাউচার দিয়ে ক্রেতা নিজের বা পরিবারের জন্য যেমন পণ্য কিনছেন, তেমনই উপহারও দিচ্ছেন অন্যকে।

ওয়ালটনের ডেপুটি ডিরেক্টর রাকিবুল হোসেন আহমেদ জানান, ওয়ালটন প্লাজা ও শোরুমগুলো সাজানো হয়েছে ফেস্টুন ও ব্যানার দিয়ে। দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়কে তৈরি করা হয়েছে সুদৃশ্য তোরণ। ট্র্যাক, পিকআপ, অটোরিকশা, রিকশা ভ্যান, ঘোড়ার গাড়ি ইত্যাদিতে করে ব্যান্ড পার্টি সহযোগে চলছে ব্যাপক প্রচার। বিলি করা হচ্ছে লিফলেট।

অপারেটিভ ডিরেক্টর আরিফুল আম্বিয়া জানান, পণ্য কেনার পর রেজিস্ট্রেশন করতে ক্রেতাদের মাঝে এক ধরনের অনাগ্রহ কাজ করতো। কিন্তু ক্যাশ ভাউচারের ঘোষণা এবং তাৎক্ষণিক বিজয়ীর হাতে পণ্য তুলে দেওয়ায় ক্রেতাদের মাঝে উৎসাহ ও উদ্দীপনা বিরাজ করছে।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ওয়ালটনের বিক্রয় প্রতিনিধি ও পরিবেশকদের মতে, ডিজিটাল ক্যাম্পেইন এবং নিশ্চিত ক্যাশ ভাউচারের এই কার্যক্রমকে ক্রেতারা দেখছেন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ হিসেবে। রেজিস্ট্রেশনের পর ফিরতি মেসেজ পাওয়ার জন্য তারা অপেক্ষা করছেন অধীর আগ্রহে। তাদের আনন্দ হাজারগুণ বেড়ে যাচ্ছে যখন বড় অংকের ক্যাশ ভাউচার পাচ্ছেন।

চট্টগ্রাম পশ্চিম জোনের এরিয়া ম্যানেজার ইমরুজ হায়দার খান জানান, বন্দর নগরীতে ক্রেতাদের মাঝে ব্যাপক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। বরিশাল জোনের এরিয়া ম্যানেজার আল মাহফুজ খান জানান, তার অঞ্চলে ইতিমধ্যেই দুজন ক্রেতা ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পেয়েছেন। লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পাওয়া ক্রেতাদের নিয়ে এলাকায় আনন্দ মিছিল হয়েছে। ভ্যান ভর্তি ওয়ালটন পণ্য নিয়ে ক্রেতারা ঘরে ফিরেছেন। ফলে সবার মুখে মুখে ফিরছে ওয়ালটনের নাম।

ওয়ালটনের বিপণন বিভাগের প্রধান এমদাদুল হক সরকার জানান, ডিজিটাল ক্যাম্পেইন বিক্রয় বৃদ্ধিতেও ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। গত বছরের তুলনায় এই সময়ে প্রায় ২৫ শতাংশ বিক্রি বেড়েছে। ক্যাম্পেইনের সময় যত গড়াবে বিক্রয় বৃদ্ধির এই হার আরো বাড়বে বলে তার প্রত্যাশা।

কুমিল্লার মুরাদনগরের ইরফান ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড মোবাইল গ্যালারি থেকে ১৪ হাজার টাকা দিয়ে ওয়ালটন এলইডি টিভি কিনে গত ৬ অক্টোবর ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পান খায়রুল ইসলাম নামের এক ক্রেতা। শোরুমটির সত্বাধিকারী গোলাম হায়দার স্বপন জানান, খায়রুলের লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার প্রাপ্তির খবরে এলাকায় ব্যাপক সাড়া পড়ে। তার গলায় ফুলের মালা পরিয়ে ঢোল বাজিয়ে আনন্দ মিছিল করা হয়। এরপর বহু ক্রেতা ভিড় করেন শোরুমে। কয়েকদিনেই স্টকে থাকা সব টিভি ফ্রিজ বিক্রি হয়ে যায়। নতুন চালান আসার আগে অনেকে অগ্রিম অর্ডার দিয়ে রেখেছেন।

কুমিল্লার মতো চিত্র দেখা যাচ্ছে দেশের অনান্য স্থানেও। গত ২ অক্টোবর ক্যাম্পেইন শুরুর পর থেকে প্রতিদিন অন্তত একজন করে ক্রেতা পাচ্ছেন ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার। এ ছাড়া থাকছে ২০০ টাকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন অংকের ক্যাশ ভাউচার।

ডিজিটাল ক্যাম্পেইন শুরু হয়েছে ২ অক্টোবর। চলবে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এর আওতায় প্রতিদিন ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত নিশ্চিত ক্যাশ ভাউচার দেওয়া হচ্ছে। তিন মাসে ক্রেতারা পাবেন আনুমানিক ১৫ কোটি থেকে ২০ কোটি টাকার ক্যাশ ভাউচার।

-সিনিউজভয়েস ডেক্স