এলজি ভি৪০ থিংক  

আমাদের দেশে ফোনের বাজারে এলজির অতটা নামডাক না থাকলেও বিশ্ববাজারে এলজির ফোনের ভিন্ন ধরনের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। ভিড়ে ভাড়াক্রান্ত ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাময় ফ্ল্যাগশিপ মার্কেটেও এলজি-র ভি৪০ নিজের জন্য স্বতন্ত্র একটি অবস্থান দখল করে নেবে আশা করা যায়।

তিনটি রিয়ার ক্যামেরাসমৃদ্ধ ফোন বাজারে আনার ক্ষেত্রে হুয়াওয়েই অন্যদের সামনে পথপ্রদর্শক হলেও এলজিও যে খুব একটা পিছিয়ে নেই প্রমাণ করেছে একটি ফোনে পাঁচ পাঁচটি ক্যামেরা সংযুক্ত করার ঘোষণা দিয়ে। তিনটি ক্যামেরা আছে পেছনে আর দুটি আছে সামনে। অন্যদের সাথে বরাবরই একটি পার্থক্য ছিল এলজির আর সেটি হল, তাদের দ্বিতীয় রিয়ার ক্যামেরাটির আছে একটি ট্রু ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স যা ল্যান্ডস্কেপ ও বড় রুমের ছবি তোলার জন্য একেবারে আদর্শ।

নতুন এলজি ভি৪০ ফোনে ওয়াই-অ্যাঙ্গেল ক্যামেরাটির সাথে আছে একটি টেলিফটো লেন্সও যার সাহায্যে বলতে গেলে যে কোনো রকম ক্যামেরার কারিগরি দেখানো সম্ভব- যার মধ্যে আছে একবারে তিন তিনটি ছবি তোলার কাজও।

এতে আরো আছে একটি ৩.৫ মিলিমিটারের হেডফোন জ্যাক যার সাথে আছে কোয়াড-ডিএসি সাপোর্ট, ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেট আপ, ডুয়াল ফ্রন্ট ফেসিং ক্যামেরা, ওয়্যারলেস চার্জিং, আইপি৬৮ রেটিং, এমআইএল-এসটিডি ৮১০জি শক রেজিস্ট্যান্স রেটিং, মাইক্রোএসডি এক্সপানশন কার্ড এবং বুকবক্স স্পিকার সমৃদ্ধ অসাধারণ অডিও সাপোর্ট। এর ৩,৩০০ mAh- এর ব্যাটারি হয়ত এই তালিকার প্রথম পাঁচটি ফোনের মতো অসাধারণ ব্যাটারি আয়ু দেবে না, যা সারাদিনের জন্য পরিপূর্ণ ব্যবহারের একটি বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

-ইন্টা.সিনিউজভয়েস/জিডিটি/২৫এফ/১৯

Please Share This Post.