এন্ড্রয়েড ৭ যুক্ত স্মার্ট টিভি বাজারে

টেলিভিশনের বড় পর্দায় ইউটিউব, ফেসবুক, ইন্টারনেট ব্রাউজিং, গেমিং, মোবাইলে রক্ষিত অডিও, ভিডিও, ইমেজ ইত্যাদি উপভোগ করতে পারায় বাজারে স্মার্ট টিভির গ্রাহক চাহিদা বাড়ছে ব্যাপক। সেই সঙ্গে বাড়ছে বিক্রিও। তাই নিজস্ব কারখানায় স্মার্ট টিভির উৎপাদন বাড়িয়েছে বাংলাদেশী মাল্টিন্যাশনাল ব্র্যান্ড ওয়ালটন।

সম্প্রতি স্মার্ট টিভির লেটেস্ট অপারেটিং সিস্টেম ‘এন্ড্রয়েড ৭’ যুক্ত ৩২, ৩৯ ও ৪৩ ইঞ্চির নতুন মডেলের টিভি বাজারে ছেড়েছে ওয়ালটন। নতুন মডেলের প্রতিটি টিভিতে রয়েছে ১ জিবি র‌্যাম ও ৮ জিবি বিল্ট-ইন মেমোরি।

ওয়ালটন দাবি করেছে, প্রযুক্তি নিয়ে নিয়মিত গবেষণার মাধ্যমে এলইডি ও স্মার্ট টেলিভিশন উৎপাদন খাতে ব্যাপক অগ্রগতি অর্জন করেছে তারা। টিভির মান যেমন উন্নত হয়েছে, তেমনি কমেছে উৎপাদন খরচও।

অত্যাধুনিক প্রযুক্তির প্যানেল, উচ্চ গতির প্রসেসর, লার্জ ভিউয়িং অ্যাঙ্গেল, হাই কন্ট্রাস্ট পিকচার, ডলবি ডিজিটাল সাউন্ড সিস্টেম, আল্ট্রা স্লিম ডিজাইন ও সাশ্রয়ী মুল্যের জন্য স্থানীয় বাজারে ওয়ালটন স্মার্ট টিভির চাহিদা ও বিক্রি বেড়েছে। তাই, এবার তারা ২৪ হাজর ৯’শ টাকায় গ্রাহকদের দিচ্ছে ‘এন্ড্রয়েড ৭’ যুক্ত লেটেস্ট অপারেটিং সিস্টেমের ৩২ ইঞ্চি স্মার্ট টিভি। পাশাপাশি, ‘এন্ড্রয়েড ৭’ এর ৩৯ ইঞ্চি স্মার্ট টিভি ৩৬ হাজার ৯’শ টাকায় ও ৪৩ ইঞ্চি স্মার্ট টিভি ৩৯ হাজার ৯’শ টাকায় কিনতে পারছেন গ্রাহক।

Smart-TV-Pic-32

ওয়ালটন টেলিভিশন সেলস বিভাগের প্রধান মারুফ হাসান জানান, প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় স্মার্ট টিভির উদ্ভাবন টেলিভিশন খাতে এনেছে যুগান্তকারী পরিবর্তন।

তিনি বলেন, সাশ্রয়ী মূল্যে দেশের প্রতিটি ঘরে উচ্চ গুণগতমানের স্মার্ট টিভি পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে ওয়ালটন। এরইমধ্যে টেলিভিশন গবেষণা ও মানোন্নয়নে আরো বিশাল পরিমাণ বিনিয়োগের পরিকল্পনা রয়েছে।

ওয়ালটনের টেলিভিশন বিভাগের প্রকৌশলীরা জানান, রিমোট ছাড়াই গ্রাহকের হ্যান্ডসেটে ইনস্টলকৃত ই-শেয়ার অ্যাপসের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে ওয়ালটনের স্মার্ট টিভি।

ওয়ালটনের ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম বলেন, একসময় স্থানীয় টেলিভিশন বাজার ছিল আমদানি নির্ভর। কিন্তু, দেশেই আধুনিক ও আন্তর্জাতিকমানের মানের টেলিভিশন উৎপাদন শিল্প স্থাপিত হওয়ায় সেই চিত্র বদলেছে।

ওয়ালটন টেলিভিশন বিভাগের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা প্রকৌশলী মোস্তফা নাহিদ হোসেন বলেন, গ্রাহকদের সময়োপযোগী পণ্য উপহার দিতে ওয়ালটন গড়ে তুলেছে দেশের অন্যতম বৃহৎ টেলিভিশন গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগ। যার স্বীকৃতিসরূপ সম্প্রতি ওয়ালটন টিভি অর্জন করেছে ব্যুরো অব ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডস (বিআইএস) ও স্ট্যান্ডার্ডস অরগানাইজেশন অব নাইজেরিয়া প্রোডাক্ট কনফরমিটি এ্যাসেসমেন্ট প্রোগ্রাম এর টেস্টিং সার্টিফিকেট।

মেইড ইন বাংলাদেশ’ খ্যাত ওয়ালটন টিভি এশিয়া, মধ্য-প্রাচ্য, আফ্রিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও রপ্তানি হচ্ছে। গুনগত উচ্চমান এবং দামে সাশ্রয়ী হওয়ায় প্রতিনিয়ত সম্প্রসারিত হচ্ছে রপ্তানি বাজার।

ওয়ালটন টিভিতে রয়েছে ৬ মাসের রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টিসহ এলইডি প্যানেল ও খুচরা যন্ত্রাংশে দুই বছরের ওয়ারেন্টি ও পাঁচ বছরের ফ্রি বিক্রয়োত্তর সুবিধা। আরো রয়েছে আইএসও সনদপ্রাপ্ত সার্ভিস ম্যানেজমেন্টের আওতায় দেশব্যাপী বিস্তৃত সার্ভিস পয়েন্ট থেকে দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবার নিশ্চয়তা।

-সিনিউজভয়েস

Please Share This Post.