ইনফোকম ও সিটিও ফোরামের উদ্যোগে ঢাকায় শুরু হচ্ছে টেক সামিট ২০১৬

 

সিটিও ফোরাম হচ্ছে বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারকারীদের অংশগ্রহণে গঠিত সংগঠন যারা তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার এবং এর উন্নয়ন ও নিরাপত্তা বিষয়ে গণসচেতনতা বৃদ্ধি ও ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশনে কাজ করে আসছে। আর ইনফোকম হচ্ছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা গ্রুপের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান, যারা দীর্ঘদিন ধরে ভারতে তথ্যপ্রযুক্তিবিদদের নিয়ে কাজ করে আসছে যা ভারতের তথ্যপ্রযুক্তিখাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

ইনফোকম এবং সিটিও ফোরাম বাংলাদেশ বিগত দুই বছর ধরে বাংলাদেশ ও ভারতের তথ্যপ্রযুক্তিবিদদের নিয়ে বিভিন্ন সভা সম্মেলন আয়োজন করে আসছে। এই লক্ষ্যে “Architecting Secured Digital Business” থিমের ওপর ভিত্তি করে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ইনফোকম ও সিটিও ফোরাম বাংলাদেশ-এর আয়োজনে ঢাকায় আগামী ১১-১২ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে ‘ইনফোকম-সিটিও ফোরাম টেক সামিট ২০১৬’। উক্ত সামিটে ভারত, বাংলাদেশ ছাড়াও শ্রীলঙ্কা, নেপাল, মায়ানমার এবং ভুটানের তথ্যপ্রযুক্তিবীদরা যোগ দেবেন।

শনিবার সিটিও ফোরামের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে টেক সামিট ২০১৬ আয়োজনের ঘোষণা দিয়ে বিস্তারিত জানান সিটিও ফোরাম বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট তপন কান্তি সরকার ও ভারতের আনন্দবাজার গ্রুপের (এবিপি) আইটি বিভাগের অ্যাসোসিয়েট ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ইনফোকমের সাংগঠনিক সম্পাদক কালি কৃষ্ণ মহাপাত্র।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন সিটিও ফোরাম বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক ড. ইজাজুল হক, কোষাধক্ষ্য মো. মইনুল ইসলাম, কার্যকরী কমিটির সদস্য শ্যামা প্রসাদ বেপারী, লুৎফর রহমান এবং ইনফোকমের সৌমিল্য দাস সহ বিভিন্ন পত্রিকায় কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সিটিও ফোরাম বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট তপন কান্তি সরকার বলেন, সিটিও ফোরাম দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে সভা, সেমিনার, সম্মেলনসহ নানা বিষয়ে কাজ করছে। এরই ধারাবাহিকতায় গতবছর ঢাকায় টেক সামিট ২০১৫ অনুষ্ঠিত হয়। সামিটে বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারত, নেপাল, ভুটান ও শ্রীলঙ্কা থেকে ১০০ জনের বেশি প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ, সিআইও, সিটিও, সিআইএসও, সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, গুরুত্বপূর্ণ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের আইটি প্রধান, আইটি কনসালট্যান্ট ও ব্যবহারকারীরা অংশগ্রহণ করে।

গত সমিটের সাফল্যকে বিবেচনা করে এ বছর আরো বিশাল পরিসরে ২য় বারের মত আমরা এই সামিটের আয়োজন করছি। আমরা আশা করি এবারের আয়োজন এশিয়ার বিভিন্ন দেশের বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির আন্তঃসর্ম্পককে জোরদার করবে। গতবারের মত এবারও থাকবে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সেমিনার ও মুক্ত আলোচনা যেখানে দেশের ও সার্ক সদস্যভুক্ত দেশগুলোর অথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা যোগদান করবেন। সম্মেলনে প্রযুক্তিপণ্য, সেবা, সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, ব্যবহারকারী প্রতিষ্ঠান ও আইটি কোম্পানিগুলোর মধ্যে অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ সৃষ্টি হবে। থাকবে ‘ইনফোকম-সিটিও ফোরাম আইসিটি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড ২০১৬’। সার্ক অঞ্চলের প্রযুক্তি খাতে করপোরেট প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের স্ব-স্ব খাতে বিশেষ অবদানের জন্য এই সম্মাননা প্রদান করা হবে।

এছাড়াও এবারের আয়োজন পেশাজীবিদের সংঙ্গে অংশগ্রহণ করছে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাথী ও ফ্যাকাল্টিরা যা একাডেমি ও ইন্ডাস্ট্রির মধ্যকার দুরত্ব ঘোচাতে সাহায্য করবে। এবং নব গ্রাজুয়েটরা পাবে ইন্ডাস্ট্রি লিডারদের সংস্পর্শ, যা তাদের ক্যারিয়ার গঠনে দিকনিদের্শক হিসেবে ভূমিকা পালন করবে।

টেক সামিটের বিস্তারিত তথ্য নিয়ে সিটিও ফোরামের ওয়েবসাইটকে (www.ctoforumbd.org) নতুন আঙ্গিকে সাজানো হয়েছে এবং টেক সামিটের জন্য রেজিষ্ট্রেশন শুরু হয়েছে।

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা গ্রুপের (এপিবি) আইটি বিভাগের অ্যাসোসিয়েট ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ইনফোকমের সাংগঠনিক সম্পাদক কালি কৃষ্ণ মহাপাত্র বলেন, এবারের টেক সামিটে সার্কের ৬টি দেশের আইটি প্রফেশনালসগণ একত্রিত হয়ে আইটি সক্ষমতা প্রদর্শন করবেন। আমরা সিটিও ফোরাম বাংলাদেশের সঙ্গে যৌথভাবে তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক বেশ কিছু সফল প্রোগ্রাম করেছি। আশা করি অতীতের চেয়ে আরো সফল হবে এবারের টেক সামিট। অদূর ভবিষ্যতে সার্ক অঞ্চলের সব দেশকে যুক্ত করে বড় পরিসরে সামিট হবে। সামিটে আন্তঃদেশীয় প্রযুক্তি সেবা বিনিময় ও যোগাযোগের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, টেক সামিটে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি, তথ্যপ্রযুক্তির নানা সম্ভাবনা-সমস্যা, ট্রেন্ড নিয়ে আলোচনা ও সেমিনার হবে। সামিটে দেশ-বিদেশের খ্যাতনামা প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ, সিআইও, সিটিও, সিআইএসও, সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, প্রযুক্তি ব্যবহারকারীরা অংশ নেবেন। সামিটে প্রযুক্তির নানা বিষয়ে আলোচনা, সমস্যা সমাধান, নীতিনির্ধারণসহ আন্তঃযোগাযোগের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.