ইউটিউব চ্যানেল বিক্রির নামে অভিনব অনলাইন প্রতারণা

আমি আমার ইউটিউব চ্যানেলটি বিক্রি করব। কেউ আগ্রহী থাকলে আমার সাথে যোগাযোগ করুন। সাবস্ক্রাইবার ৬০০০।ইউটিউবার্স কমিউনিটি বাংলাদেশ নামক একটি ফেসবুক গ্রুপে এমন একটি পোস্ট দেয়া হয় সাকিব আহমেদ (Shakib Ahmed) নামক একটি আইডি থেকে।

জনৈক ফেসবুক ব্যবহারকারী হোসেন (ছদ্মনাম) তার এই পোস্টটি দেখে চ্যানেলটি কেনার আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং ফেসবুক ম্যাসেনঞ্জারের মাধ্যমে সাকিব আহমেদ নামক সেই আইডির সাথে যোগাযোগ করেন। ম্যাসেঞ্জারে ‘আমার স্কুল ব্যাগ’ নামে একটি ইউটিউব চ্যানেলের লিংক শেয়ার করেন (https://www.youtube.com/channel/UCjvUJDjKOtVXPkUzUkrZfLw) এবং চ্যানেলটির দাম জিজ্ঞেস করলে জবাবে সাকিব আহমেদ বলেন ১০০০ টাকা। অতপর নিজের মোবাইল নাম্বারটিও শেয়ার করা হয় সাকিব আহমেদ নামক আইডি থেকে।

যথারীতি আগ্রহী ক্রেতা সাকিব আহমেদকে প্রদত্ত মোবাইল নাম্বারে ফোন করেন এবং তার শর্ত অনুযায়ী বিকাশ এর মাধ্যমে ১০০০ টাকা পাঠান।

কিন্তু, লেনদেনের ছন্দপতনটা ঘটে ওখানেই। টাকা পাওয়ার পর শর্ত অনুযায়ী ইউটিউব চ্যানেলটির লগ ইন এক্সেস দেয়ার বদলে মোবাইল ফোন ধরা থেকে বিরত থাকেন সাকিব আহমেদ নামক তথাকথিত ইউটিউবার।

অনুসন্ধানের সূত্রপাতও এখান থেকেই শুরু। ‘সাকিব আহমেদ’ এর আসল আইডি আহমেদ সাকিব (https://www.facebook.com/Riders.shakib.Ahmed.1?lst=1274490236%3A100011698461746%3A1525865506)। দুটো আইডির কভার ফটো হিসেবেই ফোরজি গ্যাং নামক একটি গ্রাফিক্স ব্যবহার করা হয়েছে। তাছাড়াও তার ফেক আইডিতে ব্যবহৃত প্রোফাইল পিকচার এবং তার অরিজিনাল আইডির পোস্টে তার আপলোডকৃত ছবির মধ্যে কোন পার্থক্য নেই যদিও প্রতারনাকারী আইডিটি লেনদেনের কিছুক্ষন পরই ডিএকটিভেট করে দেয়া হয়।

তবে, তথাকথিত সেই ইউটিউবারের আসল আইডিতে অনুসন্ধান করে জানা গেছে, সে পাবনার বেড়া থানায় অবস্থিত আলহেরা একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজ এর একজন ছাত্র (অন্তত: আইডিতে সেটাই দেয়া আছে) । তাছাড়াও, তার ট্যাগকৃত ছবিগুলো ঘেটে তার বন্ধুদের আইডি ব্রাউজ করে দেখা গেছে তার বেশিরভাগ বন্ধুই আলহেরা একাডেমীর ছাত্র।

এ বিষয়ে জজ কোর্টের আইনজীবি এডভোকেট সোহেল রানা আকন্দ বলেন, “এই ধরনের প্রতারনা প্রমানিত হলে প্রতারকের বিরুদ্ধে ৪০৬ এবং ৪২০ ধারায় মামলা হতে পারে এর শাস্তিস্বরূপ ৩-৭ বছরের কারাদন্ড এবং নগদ অর্থ জরিমানা হতে পারে।”

ঘটনার বিষয়ে ভুক্তভুগীর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ১০০০ টাকা হয়ত অনেকের কাছেই খুব বেশি টাকা নয়। কিন্তু, যে প্রতারনা করেছে সে তো হয়ত আমার মত শত মানুষের সাথেই ১০০০ করে করে প্রতারনা করছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ এর স্বপ্নযাত্রায় আমরা সবাই একেকজন যাত্রী। কিন্তু, এই ধরনের প্রতারনা বন্ধ না হলে কখনোই ডিজিটাল প্রযুক্তির সদ্ব্যবহার থেকে জাতি বঞ্চিত হবে।

ঘটনার অনুসন্ধানে, সাকিব আহমেদ এর সাথে (01746728922) মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বহুবার যোগাযোগের চেষ্ঠা করেও ব্যর্থ হয়েছে এই প্রতিবেদক।

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/


Please Share This Post.