আরও শক্তিশালী নেটওয়ার্ক নিয়ে গ্রাহক সেবার মান বৃদ্ধিতে প্রস্তুত বাংলালিংক

বাংলাদেশের অন্যতম ডিজিটাল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বাংলালিংক নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে গ্রাহক সেবার মান উন্নয়নের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে। গ্রাহকদের উন্নততর ডিজিটাল সেবা প্রদানের লক্ষ্যে বাংলালিংক চলতি মাসে ৩০০০ কোটি টাকারও বেশি পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছে, যা বাংলাদেশের টেলিকম অপারেটরদের সর্বোচ্চ বিনিয়োগগুলির মধ্যে একটি। আজ বাংলালিংক-এর প্রধান কার্যালয় ‘টাইগার্স ডেন’-এ অনুষ্ঠিত এক প্রেস কনফারেন্সে বাংলালিংক-এর সিইও এরিক অস উল্লিখিত তথ্যগুলি প্রকাশ করেন। উক্ত প্রেস কনফারেন্সে উপস্থিত ছিলেন বাংলালিংক-এর চিফ কর্পোরেট এ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অফিসার তাইমুর রহমান, চিফ মার্কেটিং অফিসার মাইক মাইকেল এবং প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ।

এ মাসে বাংলালিংক বেশ কিছু মাইল ফলক অর্জন করেছে, যা প্রতিষ্ঠানটির নেটওয়ার্ক সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে গ্রাহকদের নিরবিচ্ছিন্ন ডিজিটাল সংযোগ ও উন্নততর কাভারেজ প্রদানে ভূমিকা রাখবে। বাংলালিংক সম্প্রতি অনুষ্ঠিত স্পেকট্রাম নিলামে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে ২১০০ মেগা হার্টজ ব্যান্ডের ৫ মেগা হার্টজ স্পেকট্রাম ও ১৮০০ মেগা হার্টজ ব্যান্ডের ৫.৬ মেগা হার্টজ স্পেকট্রাম ক্রয় করে। সংযোজিত এই স্পেকট্রাম বাংলালিংক-এর মোট স্পেকট্রামের পরিমাণ ৫০%-এরও বেশি বৃদ্ধি করেছে। এর ফলে দেশের প্রধান তিনটি অপারেটরের মধ্যে গ্রাহক প্রতি স্পেকট্রাম প্রদানের দিক থেকে শীর্ষ স্থানে রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

এছাড়া এ মাসেই বাংলালিংক ফোরজি সেবা চালুর মাধ্যমে বাংলাদেশে ডিজিটাল সংযোগের এক নতুন যুগের সূচনা করেছে। ফোরজি নেটওয়ার্কের দ্রুত গতির ইন্টারনেট গ্রাহকদের জিরো-বাফার এইচডি ভিডিও স্ট্রিমিং, এইচডি কোয়ালিটির ভিডিও কলিং, হাই ফিডেলিটি মিউজিক স্ট্রিমিং, অনলাইন গেমিং, সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং ও অন্যান্য ইন্টারনেট সেবা ব্যবহারের সুযোগ করে দেবে। এর পাশাপাশি স্বাস্থ্যসেবা, ভিডিওর মাধ্যমে শিক্ষা গ্রহণ, যোগাযোগ ব্যবস্থা ও অর্থসেবার মান বৃদ্ধি করে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেও ভূমিকা রাখবে ফোরজি। বাংলালিংক ইতোমধ্যে প্রধান বিভাগীয় শহর ও গুরুত্বপূর্ণ জেলা শহরগুলিতে ফোরজি সেবা চালু করেছে। আগামী রমজানের পূর্বেই দেশের ৩০% এলাকা ফোরজি কাভারেজের আওতায় নিয়ে আসবে বাংলালিংক। নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বিভাগীয় শহরগুলিতে ফোরজি সম্প্রসারণের জন্য ৩৬ মাসের সময়সীমা প্রদান করলেও আগামী তিন মাসের মধ্যেই এই লক্ষ্য অর্জন করবে প্রতিষ্ঠানটি।

টেক নিউট্রালিটি”-র প্রয়োগও বাংলালিংক-এর সেবার মান বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। এই বিশেষ প্রযুক্তিগত সুবিধা যে কোনো ব্যান্ডের স্পেকট্রাম থেকে টুজি, থ্রিজি ও ফোর জি সার্ভিস দেওয়ার সুযোগ দেবে বাংলালিংক-কে, যার ফলে থ্রিজি সেবার মানও উন্নত হবে।

বাংলালিংক-এর সিইও এরিক অস বলেন, “প্রযুক্তির মাধ্যমে মানুষের জীবনযাত্রা পরিবর্তনের লক্ষ্য নিয়ে ২০০৫ সালে যে যাত্রা শুরু করেছিলো বাংলালিংক, তা এই মাসে এক নতুন মাত্রা পেয়েছে। স্প্রেকট্রাম সংযোজন, ফোরজি ও টেক নিউট্রালিটির প্রয়োগ নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে আমাদের সেবার মানকে এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দেবে। নেটওয়ার্কের ক্ষমতা দ্বিগুণ বৃদ্ধির ফলে এখন আমরা গ্রাহকদের নিরবিচ্ছিন্ন ডিজিটাল সংযোগ প্রদানে সক্ষম, যা তাদের কাছে বিভিন্ন ডিজিটাল সার্ভিসের ব্যবহার আরও সহজ করে তুলবে।

দেশের অন্যতম ডিজিটাল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’-এর ভিত্তি নির্মাণে বাংলালিংক উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে চলেছে। আরও শক্তিশালী নেটওয়ার্কের সক্ষমতা নিয়ে ভবিষ্যতে বাংলাদেশের ডিজিটাল যুগে প্রবেশের পথ নির্মাণে অবদান রাখতে চায় বাংলালিংক।

সিনিউজভয়েস//ডেস্ক/

Please Share This Post.