আওটিতে ভালো করতে প্রয়োজন গতিশীল ইন্টারনেট

২০২০ সালের মধ্যে ৩৪ বিলিয়ন ডিভাইস একে অপরের সঙ্গে কানেক্টেড হবে। আর আইওটি পণ্য কিনতে সারা বিশ্বে আগামী পাঁচ বছরে খরচ হবে ৬ ট্রিলিয়ন ডলার। তাই বাংলাদেশের মতো দেশে আইওটি ব্যবসায় অনেক বড় সুযোগ রয়েছে।

রাজধানীতে চলমান বেসিস সফটএক্সপোর দ্বিতীয় দিনে ‘আইওটি- চেইনজিং আওয়ার লাইফস্টাইল’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির মতো আইওটি বিপ্লব শুরু হবে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যেই। কিন্তু এর সঙ্গে তাল মেলাতে আমাদের এখনি প্রস্তুতি নিতে হবে।

তিনি বলেন, আইওটি প্রযুক্তির মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে ইন্টারনেট। কিন্তু বাংলাদেশে ইন্টারনেটের বিস্তার এখনো ঠিকমতো ঘটেনি। এখানে থ্রিজি নেটওয়ার্কও ঠিকমতো কাজ করে না। কিন্তু অনেক দেশ ফাইভজি চালুর দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে। তাই সরকারকে ইন্টারনেটের সমস্যা নিরসনে এখনই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, কৃষি থেকে শুরু করে মানুষের জীবন যাপনের সকল ক্ষেত্রে আইওটি প্রাধান্য পাবে। তাই পর্যাপ্ত লোকবল তৈরি করতে আমাদের অ্যাকাডেমিক সিষ্টেমেও পরিবর্তন আনা প্রয়োজন। সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সিলেবাস ঢেলে সাজানো উচিত।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অ্যাপলম্বটেকেরে সিনিয়র এক্সিকিউটিভ এমএস কে নাহিদ সানোয়ার। বক্তব্য রাখেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সিএসই বিভাগের প্রধান সৈয়দ আখতার হোসেন, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির সিএসই বিভাগের প্রধান প্রফেসর মোজাম্মেল হক আজাদ খান, কেলসি টেকনোলজিসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠাতা মাঙ্গালা করুনারতে, ক্যাকটস লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম ও লিডসসফটের প্রজেক্ট ম্যানেজার মো. শামছুল হক।

 

– সিনিউজভয়েস ডেস্ক

Please Share This Post.