আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্পের উদ্বোধন করেন পলক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ শিক্ষার্থীদের আইটিতে ক্যারিয়ার গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি তরুণদের সামনে সম্ভাবনার দূয়ার খুলে দিয়েছে। শিক্ষিত তরুণেরা এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয় নিজের ক্যারিয়ারকে যেমন বিকশিত করতে পারে, তেমনি ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের কাঙ্খিত লক্ষ্য পূরণে ভূমিকা রাখতে পারে।
প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) লিভারেজিং আইসিটি ফর গ্রোথ এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড গভর্নেন্স (এলআইসিটি) প্রকল্প কর্তৃক আয়োজিত আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্পের উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন। রাজধানীর বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, আইটি শিল্প ও ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
এলআইসিটি প্রকল্প তথ্যপ্রযুক্তি খাতে শিক্ষিত তরুণদের আগ্রহী করে তোলা ও সম্পৃক্ততা বাড়াতে দেশের ৬৪ জেলার নির্বাচিত সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে বছর জুড়ে অনুরুপ আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্পের আয়োজন করবে।
পলক বলেন, দেশে এখন তরুণদের সংখ্যাই বেশি। মোট জনসংখ্যার ৬৫ শতাংশ। যাদের বয়স ৩৫ এর নীচে। বিশ্বে খুব কম দেশই এই বিশাল কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী পেয়েছে। সরকার এই কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীকে সম্পদে পরিণত করতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিসহ বিভিন্নখাতে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে তরুণেরা ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রাণশক্তি। নানা সৃষ্টিশীল উদ্যোগ, অর্জনে, কৃতিত্বে তরুণেরাই আমাদের জন্য নতুন আশার সঞ্চারক। আইটি খাতে তাদের সম্পৃক্ততা যতো বৃদ্ধি পাবে ডিজিটাল ডিজিটাল বাংলাদেশের বাস্তবায়নের গতি ততো ত্বরান্বিত হবে।

তিনি বলেন, আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্পের মূল লক্ষ্য বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীদের তথ্যপ্রযুক্তিতে আগ্রহী করে তোলা। শিক্ষার্থীদের সামনে যদি আইটি খাতের সম্ভাবণাগুলো তুলে ধরা যায় এবং তাদের প্রশিক্ষণ গ্রহণের সুযোগ করে দেয়া যায় তাহলে তাঁরা শিক্ষা জীবন থেকেই আইটিতে নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তোলার কথা ভাববে।
তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চিন্তাপ্রসূত ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অভিযাত্রায় তথ্যপ্রযুক্তির দ্রুত সম্প্রসারিত হচ্ছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে জ্ঞানভিত্তিক সমাজ ও ডিজিটাল অর্থনীতি প্রতিষ্ঠার দিকে। এজন্য প্রয়োজন তথ্যপ্রযুক্তিতে প্রশিক্ষিত দক্ষ মানব সম্পদ। আর দক্ষ মানব সম্পদ তৈরির জন্য দেশের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে বেছে নেওয়া হয়েছে আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প চালুর জন্য।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সাল নাগাদ আইসিটি রফতানির পরিমান ৫ বিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ এবং আইটি পেশাজীবিদের সংখ্যা ২ মিলিয়নে উন্নীত করার জন্য দেশে আইটি শিল্পের প্রসার ও দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলা ছাড়া কোন বিকল্প নেই। আইটি শিল্পের প্রসার ও কর্মসংস্থানের জন্য সরকার নানা কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। দেশে ১২টি হাইটেক পার্ক গড়ে তোলা হচ্ছে। যশোরের সফটওয়্যার পার্ক নির্মাণ সমাপ্তির পথে। কালিয়াকৈরে হাইটেক পার্কের উন্নয়ন জোরেশোরে এগিয়ে চলছে। এটি সমাপ্ত হলে প্রায় ৭০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

শিক্ষার্থী তরুণদের তথ্যপ্রযুক্তিতে আগ্রহী ও উদ্বুদ্ধ করার জন্য দিনব্যাপী ক্যারিয়ার ক্যাম্পের নানা ইভেন্টকে আনন্দদায়ক করে উপস্থাপন করা হয়। তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সম্ভাবনা নিয়ে ডকুমেন্টারি প্রদর্শণের পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে আইকন হিসেবে পরিচিত ব্যক্তিত্বদের মাধ্যমে তরুণদের উদ্বুদ্ধ ও প্রেরণা জাগানো বক্তৃতা এবং শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে আইসিটি বিষয়ক কুইজ ও প্রশ্নোত্তরসহ নানা ইভেন্ট দ্বারা ক্যারিয়ার ক্যাম্পের অনুষ্ঠান সাজানো হয়।
তরুণদের উদ্বুদ্ধ করা ছাড়াও ক্যারিয়ার ক্যাম্পের অন্যতম উদ্দেশ্য বর্তমানে এলআইসিটি প্রকল্প কর্তৃক আইটিতে ৩০ হাজার দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলার চলমান প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে কলেজ ও বিশ্বদ্যিালয়ের শিক্ষার্থী তরুণদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা। এলআইসিটি প্রকল্প কর্তৃক নিয়োজিত যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রতিষ্ঠান আর্নস্ট অ্যান্ড ইয়ং ৩০ হাজারের মধ্যে ১০ হাজার শিক্ষার্থীকে টপ আপ আইটি প্রশিক্ষণ এবং ২০ হজার শিক্ষার্থীকে দিচ্ছে ফাউন্ডেশন প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য ইতোমধ্যে ২২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে এলআইসটি প্রকল্পের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে এবং বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষণ চলছে।। এর বাইরে, এলআইসিটি প্রকল্প থেকে আরও ১০ হাজার তরুণ-তরুণীকে আউসোর্সিংয়ের প্রশিক্ষণ, ২ হাজার ৫শ’ সরকারি কর্মকর্তাকে ই-গভর্মেন্ট প্রশিক্ষণ এবং বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাসহ আরও প্রায় ২ হাজার ৫শ’ জনকে আইটির বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

-সিনিউজভয়েস/ডেক্স

Please Share This Post.