অল্প আলোতেও অসাধারণ পারফরমেন্স দেবে হুয়াওয়ের পি৩০ প্রো

আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ও লেইকা কোয়াড ক্যামেরা ফিচারসহ বাজারে আসছে হুয়াওয়ের পি ৩০ প্রো। এছাড়াও পি৩০ সিরিজের এ ফোনগুলোতে থাকছে অপটিপকাল, ডিজিটাল জুমিংসহ পেরিস্কোপ লেন্স এবং টাইম অব ফ্লাইট (টিওএফ) ডেপথ সেনসিং ক্যামেরা। ফলে খুব কম আলোতেও অসাধারণ ছবি ও ভিডিও দৃশ্য ধারণ করা যাবে হুয়াওয়ের পি৩০ সিরিজের স্মার্টফোনে।

গত বছর ট্রিপল-লেন্স লেইকা ব্র্যান্ডেড রিয়ার ক্যামেরা সিস্টেম নিয়ে বাজারে আসে হুয়াওয়ের ফ্ল্যাগশিপ সিরিজ পি২০ প্রো। পি২০ এর অসাধারণ ক্যামেরা ফিচারের পর ফটোগ্রাফির অভিনবত্ব নিয়ে এ বছর বাজারে আসছে প্রতিষ্ঠানটির পি৩০ সিরিজ।

নতুন এ সিরিজে থাকছে লেইকা কোয়াড ক্যামেরা ফিচার। সুপার সেনসিং লেইকা কোয়াড ক্যামেরা সিস্টেমে থাকছে ৪০ মেগাপিক্সেলের একটি প্রধান ক্যামেরা। ১.৬ অ্যাপরচারের এ ক্যামেরায় থাকছে অপটিকাল ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন প্রযুক্তি। এর সাথে সুপার স্পেকট্রাম সেন্সরের কারণে আরও বেশি আলো পাওয়া যাবে। ফলে অন্ধকারেও ছবি ও ভিডিও এর দৃশ্য হবে অনেক বেশি স্পষ্ট।

ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ২০ মেগাপিক্সেলের একটি আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেলের লেন্স। যার ফলে অনেক উঁচু ভবন থেকেও সূদুরপ্রসারিত কোনো দৃশ্যের বড় আকারের ছবি ধারণ করা যাবে। এছাড়াও ৮ মেগাপিক্সেলের ৫ গুণ সুপারজুম লেন্স ক্যামেরায় ধারণ করা প্রত্যেকটি ছবির নিঁখুত বিষয়গুলোও তুলে আনবে। হুয়াওয়ের টাইম অব ফ্লাইট (টিওএফ) ফিচারের কারণে নিঁখুত ডেপথ অব ফিল্ড পাওয়া যাবে। ফলে এ ক্যামেরায় ধারণ করা ছবিগুলোতে সাবজেক্টকে হাইলাইট ও ব্যাকগ্রাউন্ড ডিফোকাসড করে অসাধারণ স্থিরচিত্র পাওয়া যাবে।

নতুন সেন্সর, লেন্স সেটআপ, ইমেজ সিগন্যাল প্রসেসরসহ ক্যামেরার অত্যাধুনিক সব ফিচারের কারণে প্রফেশনাল ফটোগ্রাফির স্বাদ পাওয়া যাবে এ ফোনে। ১/১.৭ ইঞ্চির সুপার-স্পেকট্রাম সেন্সরের এ সিরিজের ফোনগুলোতে আইএসও রেটিংও চমকে দিয়েছে প্রযুক্তিপ্রেমীদের। পি ৩০ প্রো এর ক্ষেত্রে আইএসও এর সর্বোচ্চ রেটিং থাকছে ৪০৯,৬০০ এবং পি ৩০ এর ক্ষেত্রে থাকছে ২০৪,৮০০। সেন্সর টেকনোলজিতে এ ধরণের পরিবর্তন এবং এআইএস, ওআইএস ও ১.৬ এফ এর ওয়াইড অ্যাপারচারের কারণে অসাধারণ স্থিরচিত্র ও ভিডিওচিত্র পাওয়া যাবে। এমনকি খুব কম আলোতেও তোলা স্থিরচিত্রগুলোতে কালারসহ স্পষ্ট ডিটেইলগুলো পাওয়া যাবে। দুর্দান্ত ছবি ও ভিডিওগ্রাফির জন্য থাকছে অবিশ্বাস্য জুমিংসুবিধা।

নতুন পেরিস্কোপ ডিজাইন এবং সুপারজুম লেন্স এর সাহায্যে ৫ গুণ অপটিক্যাল জুম, ১০ গুণ হাইব্রিড জুম, ৫০ গুণ ডিজিটাল জুম পওয়া যাবে। ছবির যথার্থ সেগমেন্টেশন ও সঠিক ডেপথ অব ফিল্ড এর জন্য এতে ব্যবহার করা হয়েছে হুয়াওয়ের টিওএফ প্রযুক্তি। যার ফলে সুপার পোট্রেইট এর সাহায্যে খুব ক্ষুদ্র বিষয়গুলোও ক্যামেরায় ধারণ করা যাবে। যে কোন দৃশ্যে সাবজেক্টকে হাইলাইট ও ব্যাকগ্রাউন্ড ডিফোকাসড করে অসাধারণসব স্থিরচিত্র পাওয়া যাবে।

স্টুডিও-গ্রেড ভিডিওগ্রাফির ক্ষেত্রে নতুন যুগের উন্মোচন করবে হুয়াওয়ের পি ৩০ সিরিজ। এর সুপার-স্পেকট্রাম সেন্সরের জন্য খুব কম আলোতেও ভালো দৃশ্য পাওয়া যাবে। এআইএস ও ওআইএস এর স্টাবিলাইজেশনের জন্য যথার্থ ও কাঙ্খিত ভিডিও ধারণ করা যাবে।

-সিনিউজভয়েস/জিডিটি/৪এপি/১৯

 

Please Share This Post.